রাগ

অতিরিক্ত রাগ ও চিৎকারের কারণে বেড়ে যায় বিভিন্ন রোগ

লাইফস্টাইল ডেস্ক:

অতিরিক্ত রাগের ও চিৎকার করার কারণে মানসিক চাপ বাড়ে সাথে বেড়ে যায় উচ্চ রক্তচাপ। যা শরীর ও মনে উভয়ের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর। এরপ্রভাবে জিবনে হেরে যেতে হয় প্রায়ই।

২০১৮ সালে গ্লোবাল ইমোশনস রিপোর্ট প্রতিবেদনের তথ্য অনুসারে, গবেষণায় অংশ নেওয়া ১৪০টি দেশের ১ লাখ ৫১ হাজার অংশগ্রহণকারীদের মধ্যে ২২ শতাংশই অতিরিক্ত রাগের সমস্যায় ভুগছিলেন। অন্যদিকে ৩৯ শতাংশ অংশগ্রহণকারী রাগের কারণে অত্যন্ত চিন্তিতবোধ ছিলেন।

তবে আমাদের চাপের মাত্রা বেড়ে গেলে তা প্রায়শই নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যায়। রাগ নেই এমন কোন মানুষ নেই, তবে যেকোন পরিস্থিতিতে রাগ নিয়ন্ত্রন করাই হলো বুদ্ধিমানের কাজ।

জেনে নিন অতিরিক্ত রাগ ও চিৎকার কোন কোন রোগের ঝুঁকি বাড়ে-

হৃদস্পন্দন বেড়ে যায়
আমরা যখন রেগে চিৎকার করি তখন আমাদের শরীরে বেশ কয়েকটি ঘটনা ঘটে। তার মধ্যে একটি হলো হৃদস্পন্দন বেড়ে যাওয়া। লক্ষ্য করলে দেখা যায়, রেগে কিছু বলতে গেলেই তর্কে জড়িয়ে পড়েন অধিকাংশ মানুষ। আর তখনই হৃদস্পন্দন বেড়ে যায়। হৃদস্পন্দন বাড়া মানেই হলো রক্তচাপ বাড়ে যাওয়া। উচ্চ রক্তচাপ বাড়ার কারণে ত্বক ও মুখ লালচে হয়ে যায় ও শিরা বেরিয়ে আসে। রেগে গেলে দ্রুত শ্বাস নিতে হয় আবার অনেক সময় হাত-পা সে স্বাভাবিকের চেয়ে ঠান্ডা হয়ে যায়। যা কখনো কখনো বিপদও ডেকে আনতে পারে।

রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমে যায়
গবেষকরা দাবি করেন, অতীতের কোনো উত্তপ্ত তর্কের কথা স্মরণ করলে কিংবা রেগে চিৎকার করে উঠলে ৬ ঘণ্টার জন্য আপনার রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমে যায়। যারা খুব সহজেই রেগে যায় তারা প্রায়শই অসুস্থ থাকেন! কারণ তাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা দুর্বল হয়ে যায়। অত্যধিক রাগী মানুষেরা অজান্তেই তাদের শারীরিক বিভিন্ন রোগের ঝুঁকি বাড়িয়ে ফেলেন।

ত্বকের সমস্যা বাড়ে
রাগের কারণে ত্বকেরও বিভিন্ন সমস্যা ঘটে। যেমন- অ্যাকজিমা ও নানা ধরনের চর্মরোগও শরীরে বাসা বাঁধতে পারে। এমন মানুষের স্ট্রোক বা হার্ট অ্যাটাকের উচ্চ ঝুঁকি আছে।

ব্যথা বাড়ে
কিছু গবেষণায় প্রমাণ হয়েছে, শিশু বা ১৩ বছরের কম বয়সী শিশুদের সামনে চিৎকার করলে শিশুর মস্তিষ্কের বিকাশ হতে বাধাপ্রাপ্ত হয়। এরপ্রভাবে মানসিক অবস্থারও পরিবর্তন ঘটে। এমন শিশুরা বড় হলে দীর্ঘস্থায়ী ব্যথায় ভুগতে পারেন। এর মধ্যে পিঠে ও ঘাড়ে ব্যথা, মাথাব্যথা ও বাতের সমস্যা বেশি দেখা দেয়।

গবেষণায় আরও দেখা গেছে, তর্কের সময় নিজেকে জয়ী প্রমাণ করতে বেশিরভাগ মানুষই অতিরিক্ত আত্মবিশ্বাসী হয়ে ওঠেন। যা ব্যক্তিত্বে খারাপ প্রভাব ফেলে

রাগ প্রতিরোধের সহজ উপায় হলো গভীরভাবে শ্বাস নেওয়া, গান শোনা কিংবা শান্ত স্থানে কিছুক্ষণ একা সময় কাটানো। অতিরিক্ত রাগের সমস্যা থেকে নিজেকে বাঁচাতে অবশ্যই মনরোগ বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।

শেয়ার করুন: