কোহলির

কোহলির যত প্রেম, সম্পর্ক ছিল রোহিতের স্ত্রীর সঙ্গেও!

স্পোর্টস ডেস্ক:

ইন্ডিয়ান ক্রিকেটের দুই সুপারস্টার বিরাট কোহলি ও রোহিত শর্মা। গুঞ্জন রয়েছে, দুই তারকার মধ্যে সম্পর্ক ভালো নেই। যদিও এর কারণ পরিষ্কার করে জানা যায়নি। তবে এমন একটি বিষয় আছে, যেটি জানলে প্রশ্ন উঠবে, কোহলি-রোহিতের সম্পর্কের ফাটলের কারণ কি রোহিত শর্মার স্ত্রী রীতিকা সাজদে?

টিম ইন্ডিয়ার তারকা ব্যাটসম্যান বিরাট কোহলি বিরুদ্ধে ক্রিকেট মাঠে ক্ষিপ্রতা নিয়ে বিস্তর সমালোচনা হয়। আবার তার চারিত্রিক বৈশিষ্ট্যেই মজে থাকেন অগণিত নারী ভক্ত। চলতি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে চেনা ছন্দে কোহলি। বাইশ গজের নায়কের জীবনে একাধিক প্রেম হবে না, তা আবার হয় নাকি!

বলিউড অভিনেত্রী আনুশকা শর্মার সঙ্গে সুখে সংসার করছেন ভারতীয় ক্রিকেট দলে অন্যতম সেরা ব্যাটসম্যান কোহলি। তাদের দু’জনের প্রেমের পরশের আঁচ প্রায়শই ধরা পড়ে ক্যামেরায়। একে অপরের প্রতি তাদের অপার ভালোবাসার কথা নিজেরাই নেটমাধ্যমে তুলে ধরেন তারা। কিন্তু কোহলির জীবনে আনুশকা আসার আগে অনেকেইই প্রেমে পড়েছিলেন। শুধু তাই নয়, রোহিত শর্মার স্ত্রীর সঙ্গেও নাকি তার সম্পর্ক ছিল।

২০১৩ সালে জিম্বাবুয়ে সফরের পর মুম্বাইয়ে ছুটি কাটাচ্ছিলেন বিরাট কোহলি। সেই সময় একটি মেয়ের সঙ্গে ডেটে গিয়েছিলেন কোহলি। গণমাধ্যমের ক্যামেরায় ধরা পড়ে যায় তাদের ছবি। কোহলি ক্যামেরার সামনে অস্বস্তিতে না পড়লেও, তার সঙ্গে যে নারী ছিলেন তিনি মুখ লোকানোর চেষ্টা করেন। কিন্তু ক্যামেরায় ধরা পড়ে যান তিনিও। সেই নারী অন্য কেউ নন, বর্তমানে রোহিত শর্মার স্ত্রী রীতিকা সাজদে।

কোহলির প্রথম প্রেমের গুঞ্জন রয়েছে ২০০৭ সালের মিস ইন্ডিয়া সারা জেন ডায়াসকে নিয়ে। মাস্কাটে জন্ম এই সুন্দরীর সঙ্গে কোহলির প্রেমকাহিনী সে সময় খুব আলোচনা হয়েছিল। কোহলির চেয়ে কয়েক বছরের বড় সারা। হিন্দি ও তামিল ছবিতে কাজ করেছিলেন সারা। জানা যায়, দু’জনের ব্যস্ত জীবনে কেউ কাউকে ঠিক মতো সময় দিতে পারতেন না। আর সে কারণেই টেকেনি সেই সম্পর্ক। যদিও সেই সম্পর্ক নিয়ে মুখ খোলেননি কেউ।

এরপর কোহরির জীবনে আসেন দক্ষিণি অভিনেত্রী তামান্না ভাটিয়া। বলিউডের পাশাপাশি তামিল, তেলুগু ছবিতেও দাপিয়ে কাজ করেছেন এই নায়িকা। একটি মোবাইল ফোনের বিজ্ঞাপনের সূত্রে কোহলি ও তামান্নার দেখা হয়েছিল। সেই সাক্ষাৎ পরে প্রেমে গড়ায়। ২০১২ সালে তাদের সম্পর্কের কথা শোনা যায়। গুঞ্জনের প্রায় সাত বছর পর একটি টক শোতে এ নিয়ে মুখ খুলেছিলেন তমান্না। তিনি বলেছিলেন, ‘শুটিংয়ের সময় আমরা কিছু কথা বলেছিলাম। এরপর কোহলির সঙ্গে কখনো দেখাও হয়নি, কথাও হয়নি।’

তামান্নার পর ২০১১ সালে আরেক দক্ষিণী অভিনেত্রী সানজানা গালরানির সঙ্গে নাকি মন দেওয়া-নেওয়া হয়েছিল কোহলির। কোহলি ও সাঞ্জানার ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও দেখা যায় সেই সময়। যদিও কেউই এই সম্পর্কের কথা স্বীকার করেননি। কোহলি তার ‘শুধু বন্ধু’ বলেই দাবি করেছিলেন সানজানা।

ব্রাজিলের অভিনেত্রী ইজাবেল লেইতের প্রেমেও মজেছিলেন কোহলি। তবে তাদের সেই সম্পর্ক দুই বছরের বেশি টেকেনি। ২০১২ থেকে ২০১৪ সাল পর্যন্ত কোহলি ও ইজাবেলের প্রেমের সম্পর্ক ছিল বলে শোনা যায়।

এক সাক্ষাৎকারে সেই সম্পর্কের কথা স্বীকার করেছিলেন কোহলি। বিচ্ছেদ প্রসঙ্গে তিনি বলেছিলেন, ‘আমরা সম্পর্কে ছিলাম প্রায় দুই বছর। পারস্পরিক বোঝাপড়ার মধ্যে এই সম্পর্ক থেকে আমরা বেরিয়েছি।’

ইজাবেলের সঙ্গে সম্পর্কের মধ্যেই নাকি আরও এক তরুণীতে মজেছিলেন কোহলি। তার নাম রীতিকা সাজদে। তিনি পেশায় ‘স্পোর্টস ট্যালেন্ট ম্যানেজার’। দ্য ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসের প্রতিবেদনে দাবি করা হয়েছিল, ২০১৩ সালে কোহলির হয়ে কাজ করেছিলেন রীতিকা।

ভারতীয় বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমের প্রতিবেদনে জানা যায়, তখন দু’জনকে প্রায়শই একসঙ্গে দেখা যেত। যদিও সেই গুঞ্জন নিয়ে কেউই কখনো মুখ খোলেননি। ২০১৫ সালে সেই রীতিকার সঙ্গেই বিয়ে হয় ক্রিকেটার রোহিত শর্মার। আর কিছুকাল পরে কোহলির জীবনে আসেন আনুশকা। ২০১৭ সালে ইতালিতে গাঁটছড়া বাঁধেন বিরুষ্কা।

ভয়েসনিউজ/এনএন

শেয়ার করুন: