‘মেইড ইন বাংলাদেশ উইক ২০২২’-এ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

গত ১৪ বছরের মধ্যে বাংলাদেশকে বদলে দিয়েছি : প্রধানমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক :

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, গত ১৪ বছরের মধ্যে বাংলাদেশকে বদলে দিয়েছি। ২০০৯ সালে দায়িত্ব নেওয়ার পর বলেছিলাম, ‘বদলে যাবে বাংলাদেশ’ আজ আমরা সত্যিই বদলে দিয়েছি। আমরা নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি পূরণ করেছি। এখন আমরা ২০৪১ সালের রূপকল্প নিয়ে কাজ করছি। উন্নয়নশীল দেশে রূপান্তরিত করতে কাজ করছি। আমার ২০৪১ সালে উন্নত সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়ে তুলবো।

১৩ নভেম্বর রোববার রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে (বিআইসিসি) ‘মেইড ইন বাংলাদেশ উইক ২০২২’ এর আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনকালে তিনি এসব কথা বলেন।

তৈরি পোশাক মালিকদের সংগঠন বাংলাদেশ পোশাক প্রস্তুত ও রপ্তানিকারক সমিতির (বিজিএমইএ) আয়োজিত এ অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি ও শিল্প বিষয়ক উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান, বিজিএমইএ সভাপতি ফারুক হাসান, প্রথম সহ-সভাপতি সৈয়দ নজরুল ইসলাম, সিনিয়র সহ সভাপতি এসএম মান্নান কচি ও সহ-সভাপতি শহীদুল্লাহ আজিম উপস্থিত ছিলেন।

উদ্যোক্তাদের যত্রতত্র শিল্প-কারখানা না গড়ে তুলে পরিবেশবান্ধব কারখানা করার আহ্বান জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, দেশের সাড়ে ১৬ কোটি মানুষ, তাদের নিরাপদ খাদ্য দিতে হবে। আমরা কারও কাছ থেকে ভিক্ষা করে চলতে চাই না, নিজের উৎপাদন নিজে করবো। সে জন্য ফসলি জমি রক্ষা করা, যত্রতত্র শিল্প-কারখানা না গড়ে তুলে পরিবেশবান্ধব কারখানা গড়ে তোলার আহ্বান জানাচ্ছি। তার ব্যবস্থাও আমরা নিচ্ছি।

তিনি বলেন, ১০০টি অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে তুলেছি। যোগাযোগ ব্যবস্থা বিশাল উন্নতি হয়েছে। পদ্মা সেতুসহ শত শত সেতু করেছি। সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থা ভালো করেছি। এসবের মাধ্যমে শুধু বাংলাদেশ না, দক্ষিণ এশিয়া, পূর্ব এশিয়ার দেশগুলোর সঙ্গে যোগাযোগ ব্যবস্থাও সৃষ্টি করছি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, এই ১০০টি অঞ্চলে দেশি বিদেশি বিনিয়োগ চাই। এগুলো বর্জ্যব্যবস্থাপনা থেকে সব ধরনের সুযোগ সুবিধা পাবেন। এখানে বহুমুখী বিনিয়োগ হউক, অঞ্চলভিত্তিক কৃষি পণ্য উৎপাদন হয়, কৃষি প্রক্রিয়াজাত পণ্য গড়ে উঠুক। এর চাহিদা কখনো দেশ ও বিদেশে কমবে না।

ব্যবসায়ীদের উদ্দেশে তিনি বলেন, তৈরি হোন পরিস্থিতির জন্য, ব্যবসায়ী সুবিধা এবং সোর্সিংয়ের জন্য সবচেয়ে উপযুক্ত জায়গা বাংলাদেশ। বিদেশি বিনিয়োগকারীদের স্বাগত জানাই পাশাপাশি দেশি উদ্যোক্তাদের বলবো, আপনারও পার্টনার হিসেবে বিদেশি উদ্যোক্তাদের খুঁজে নিন। কারণ বিনিয়োগের চমৎকার পরিবেশ রয়েছে।

এ বিষয়ে ব্যাখ্যা দিয়ে তিনি বলেন, বিনিয়োগের সব ধরনের সুযোগ সুবিধা রয়েছে বাংলাদেশে, কারণ আমাদের নীতিমালা বিনিয়োগবান্ধব। একই সঙ্গে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে শুল্কমুক্ত সুবিধা রয়েছে।

মেইড ইন বাংলাদেশ উইকে বেশ কিছু সংলাপ হবে এই সংলাপগুলো উন্নত বাংলাদেশ গড়ে তোলার লক্ষ্যে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে বলেও মন্তব্য করেন প্রধানমন্ত্রী।

অনুষ্ঠানে চার ক্যাটাগরিতে চার ব্যক্তি পুরস্কৃত করে বিজিএমইএ। প্রধানমন্ত্রী বিজয়ীদের হাতে ক্রেস্ট তুলে দেন। পুরস্কারপ্রাপ্তরা হলেন- রঞ্জন মাহতানি, বাবু অমল পোদ্দার, এস এম খালেদ এবং শাহদাত হোসেন।

শেয়ার করুন: