ফেনী মুক্ত দিবসে শহীদের স্মৃতিস্তম্ভে সাংবাদিক ইউনিয়ের শ্রদ্ধা

ফেনী মুক্ত দিবসে শহীদের স্মৃতিস্তম্ভে সাংবাদিক ইউনিয়ের শ্রদ্ধা

ফেনী প্রতিনিধি :

১৯৭১ সালের ৬ ডিসেম্বর সূর্যোদয়ের সঙ্গে সঙ্গে রক্তঝরা দীর্ঘ সংগ্রামের পথ মাড়িয়ে হানাদার মুক্ত হয় ফেনী। সেই থেকে দিনটি ফেনী মুক্ত দিবস হিসেবে পরিচিত।

এক টুকরো পতাকা আর স্বতন্ত্র পরিচয়ের জন্য এক সাগর রক্তের বিনিময়ে অর্জিত স্বাধীনতার এক ঐতিহাসিক দিবস ফেনী মুক্ত দিবস। বছর ঘুরে এলেই নানা আনুষ্ঠানিকতায় পালিত হয় দিবসটি। যা উদযাপনের প্রস্তুতি নিয়েছে জেলা প্রশাসন।

কর্মসূচি অনুযায়ী ৬ ডিসেম্বর মঙ্গলবার সকাল ১০টায় শহরের জেল রোডের মুক্তিযুদ্ধ স্মৃতিস্তম্ভে ফেনী সাংবাদিক ইউনিয়নের পক্ষ থেকে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়। এসময়ে উপস্থিত ছিলেন। ফেনী সাংবাদিক ইউনিয়ের সভাপতি যতন মজুমদার কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য শুকদেন নাথ তপন, সাধারণ সম্পাদক জহিরুল হক মিলন, কোষাধক্ষ্য সৈয়দ মনির, সদস্য আবু তাহের ভূঞা, আবু জাফর, তোফায়েল আহম্মেদ, মেরাজুল ইসলাম মামুন, আলমগীর মাসুদ, সাহাব উদ্দিন, তারেকুল ইসলাম প্রমুখ।

এসময়ে জেলা প্রশাসন, পুলিশ সুপার, ফেনী জেলা আওয়ামী লীগ, মুক্তিযোদ্ধা, মুক্তিযোদ্ধা সন্তান, ফেনী সাংবাদিক ইউনিয়ন, ফেনী রিপোর্টার্স ইউনিটিসহ বিভিন্ন সংগঠনের পক্ষ থেকে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানানো হয়।

পরে সেখান থেকে র‌্যালি বের হয়ে জেলা শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে শেষ হয়। সেখানেই মুক্ত দিবসের আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

জানা যায়, ১৯৭১ সালের ৬ ডিসেম্বর ভোর থেকে সশস্ত্র মুক্তিযোদ্ধারা ফেনীর পূর্বাঞ্চল দিয়ে মুক্তিযুদ্ধের ২ নম্বর সেক্টরের সাব-সেক্টর কমান্ডার ক্যাপ্টেন জাফর ইমামের নেতৃত্বে ভোরে দলে দলে ফেনী শহরে প্রবেশ করতে থাকে। পরে শহরের রাজাঝির দীঘির পাড়ে ডাকবাংলোর সামনে স্বাধীন বাংলাদেশের ফেনীতে প্রথম পতাকা উত্তোলন করা হয়। সেখানে জড়ো হওয়া মুক্তি সংগ্রামীরা মিছিল থেকে ‘জয় বাংলা’ স্লোগানে শ্লোগানে শহর প্রকম্পিত করে।

শেয়ার করুন: